1. multicare.net@gmail.com : banglartv.net :
বৃহস্পতিবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২২, ০৯:১৮ অপরাহ্ন

আজ ৪ ডিসেম্বর দর্শনা হানাদার মুক্ত দিবস

রিপোর্টারের নাম:
  • আপডেট: শনিবার, ৪ ডিসেম্বর, ২০২১
  • ৬৪ বার পড়া হয়েছে

মোঃ ইয়াছিন আরাফাত, দামুড়হুদা (চুয়াডাঙ্গা)প্রতিনিধিঃ ১৯৭১ সালের ৪ ডিসেম্বর শত্রু মুক্ত হয় চুয়াডাঙ্গা জেলার দামুড়হুদা উপজেলার সীমান্তবর্তী এলাকা দর্শনা।

১৯৭১ সালের ৩ ডিসেম্বর শীতের সকালে পাক হানাদার বাহীনি ও মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে তুমুল যুদ্ধ শুরু হয়েছিল। সেদিন এ সীমান্তবর্তী এলাকা স্ট্যানগান, মেশিনগান ও রাইফেলের গোলাবর্ষণের শব্দে স্তম্ভিত হয়েছিল। মৃত্যু যেন দোর গোড়ায়! তখন প্রায় দুপর হতে চলল মাঝে মাঝে শোনা যাচ্ছিল পাক হানাদারদের গর্জণ। “মুক্তি কই হাই, মুক্তি কই হাই?”

এর পর মুক্তিবাহিনীর সতর্কবার্তার বার্তা পৌছায় গোটা এলাকায়। বলা হয় অতি দ্রুত নিরাপদ স্থানে চলে যাওয়ার জন্য। কিছুক্ষণের মধ্যেই চলে যায় নিরাপদ আশ্রয়ে। সীমান্তবর্তী দর্শনা হয়ে পড়ে জনমানবহীন। এরপর আবার শুরু হয়েছিল মুক্তিবাহিনী ও পাকবাহিনীর গেরিলা যুদ্ধ। দামুড়হুদার সীমান্তবর্তী সুলতানপুর, কামারপাড়া, জিরাট, মুন্সিপুর ও আকন্দবাড়ীয়া এলাকায় মুখোমুখি আক্রমন চালায় মুক্তিবাহিনী। দর্শনায় অবস্থানরত পাকহানাদার বাহীনি মুক্তিযোদ্ধাদের আক্রমনের বশবর্তী হয়ে পালাতে বাধ্য হয়েছিল। সেই সাথে নিহত হয়েছিল কিছু পাকহানাদার বাহীনির সদস্য। আর হানাদার মুক্ত হয় দর্শনা। দর্শনা সহ আশপাশের মুক্তিযোদ্ধাদের কন্ঠে ভেসে ওঠে মুক্তির গান। সমস্ত এলাকার মানুষ ফিরে পায় স্বস্তির বাতাস। বীর মুক্তিযোদ্ধারা দর্শনার আকাশে উড়িয়েছিল লাল সবুজের পতাকা। আমারা পেছিলাম স্বাধীন স্বার্বভৌম। বাংলাদেশের নাম বিশ্ব মানচিত্রে স্থান করে নেয় স্বগৌরবে। সেই থেকে দর্শনা শত্রু মুক্ত দিবস পালিত হয় ৪ ডিসেম্বর। আর এ দিনটি ইতিহাসখচিত হয়ে আছে মানুষের হৃদয়ে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন

www.bmftelevision.com© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত।

Developer By Zorex Zira

Design & Developed BY: Al Popular It Software