1. multicare.net@gmail.com : banglartv.net :
বৃহস্পতিবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২২, ০৮:২৭ অপরাহ্ন

ইউপি নির্বাচনকে সামনে করে কুমড়াবাড়িয়া ইউনিয়নে চলছে নোংরা রাজনীতি

রিপোর্টারের নাম:
  • আপডেট: রবিবার, ২১ নভেম্বর, ২০২১
  • ১৭ বার পড়া হয়েছে

জাহিদুল হক বাবু ঝিনাইদহঃ
আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে গ্রামাঞ্চলে ভিলেজ পলিটিক্স এখন তুঙ্গে। সম্ভাব্য প্রার্থীরা একে অপরকে ঘায়েল করতে সাজানো হচ্ছে নানা রকমের কেচ্ছা কাহিনী। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ও কথিত অনলাইন নিউজ পোর্টালে ছড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে এসব গুজব আর অসত্য খবরগুলো। হরিণাকুণ্ডুর উপজেলার রঘুনাথপুরে প্রার্থীর সমর্থকের বিরুদ্ধে এক নারী কর্মীকে ধর্ষনের অভিযোগ মামলা ও সুদ কারবারীদের পক্ষে বিপক্ষে ইউপি সদস্য প্রার্থীর এ ধরণের নোংরামো ঝড় তুলেছে। এ ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতে এবার সদর উপজেলার কুমড়াবাড়িয়া ইউনিয়নে জঘন্যভাবে সম্প্রাদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট করার অপচেষ্টা করা হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। আর এসব করা হচ্ছে আসন্ন ইউপি পরিষদ নির্বাচনকে সামনে করে। ২০০৮ সালে নির্মিত মার্কেটটি কালীমন্দিরের জমিতে প্রতিষ্ঠিত বলে ধোপাবিলা গ্রামের একটি মহল নানা ভাবে বিভ্রান্ত ছড়াচ্ছে। তথ্য নিয়ে জানা গেছে, কুমড়াবাড়িয়া ইউনিয়নের ৮ নং ওয়ার্ডের মেম্বর আমজাদ হোসেন ২০০৮ সালে জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কনক কান্তি দাস ও এসিল্যান্ডের অনুমতি নিয়ে রাস্তার পাশের জমিতে বিধি মোতাবেক মার্কেট নির্মান করেন। এই জমির সঙ্গে তার ব্যক্তিগত আরো ৫৭ শতক জমি রয়েছে। জমির সামনের পতিত জমি তারই ভোগ দখল করার নিয়ম রয়েছে। সেই হিসেবে তিনি মার্কেটটি নির্মান করেন। মার্কেটের জমি থেকে ধোপাবিলা গ্রামের কালীমন্দির দুইশ গজ দূরে থাকার পরও আমজাদ হোসেনকে বিপাকে ফেলা ও এলাকায় সম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট করার চেষ্টা করছে প্রতিপক্ষরা। ধোপাবিলা গ্রামের কালীমন্দিরের দায়িত্বে থাকা অচিন্ত কুমার মজুমদার বলেন, মার্কেটটি কোন ভাবেই কালীমন্দিরের জায়গায় নয়। যারা অপপ্রচার চালাচ্ছে তারা এলাকার শান্তি বিনষ্ট করতে চাই। মন্দিরের সাংগঠনিক সম্পাদক উত্তম কুমার মজুদমদার বলেন, আমজাদ মেম্বরের মার্কেট থেকে অনেক দুরে মন্দিরটি অবস্থিত। তাছাড়া এ নিয়ে আমাদের বা এলাকার হিন্দু সম্প্রদায়ের কোন আপত্তি নেই। যারা ইউপি নির্বাচনে মেম্বরের ভোট করবে মূলত তারাই এ নিয়ে ষড়যন্ত্র করে বেড়াচ্ছে বলে উত্তম কুমার দাবী করেন। কুমড়াবাড়িয়া ইউনিয়নের ৮ নং ওয়ার্ডের মেম্বর আমজাদ হোসেন অভিযোগ করেন, এ নিয়ে তার কাছে অনেকেই চাঁদাবাজী করার চেষ্টা করছে। মন্দিরের জমি দখলের মিথ্যা অপবাদ দিয়ে সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে অজ্ঞাত ব্যক্তিরা মোটা অংকের টাকা দাবী করছে। বিষয়টি তিনি র‌্যাব ও পুলিশকে জানিয়ে আইনগত ব্যবস্থা নিবেন বলে জানান।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন

www.bmftelevision.com© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত।

Developer By Zorex Zira

Design & Developed BY: Al Popular It Software